June 13, 2016 12:12 pm A- A A+

বরিশাল জেলা আ.লীগ কমিটিতে হাসানাত পরিবারেরই ৫ জন

আবুল হাসানাত আবদুল্লাহকে সভাপতি ও তালুকদার মো. ইউনুসকে সাধারণ সম্পাদক করে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগ কমিটি গঠিত হয় ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা কমিটির মেয়াদ তিন বছর। তবে ৭১ সদস্যবিশিষ্ট সেই পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন মিলিছে সাড়ে তিন বছর পর গত শনিবার।

কমিটিতে সভাপতি আবুল হাসানাত ছাড়াও তার পরিবারের অন্তত চারজন স্থান পেয়েছেন। আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর স্ত্রী সাহানারা আব্দুল্লাহ, ছেলে আশিক আব্দুল্লাহ, শ্যালক কাজী মফিজুল ইসলাম ওরফে কাজী কামাল, চাচাতো ভাই রুস্তুম সেরনিয়াবাদ রয়েছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

এদের মধ্যে আশিক আব্দুল্লাহকে ১৯৯৬ সালের পর রাজনীতির মাঠে দেখা যায়নি। সদ্য সমাপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে গৌরনদীতে ভোট চেয়েছেন। কাজী কামাল কখনই রাজনীতিতে আসেননি। ঠিকাদারির বাইরে তিনি পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃত্বে ছিলেন।

শুধু পরিবারই নয়, সভাপতির সংসদীয় আসনের (গৌরনদী- আগৈলঝাড়া) অন্তত ১১জন কমিটিতে স্থান পেয়েছেন।
এছাড়া ১৯৯৬ সালে যাদের কারণে বরিশাল আওয়ামী লীগ বিতর্কিত হয়েছিল, তাদের বেশ কয়েকজন এবার জেলার পদ পেয়েছেন। পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা এখনো প্রকাশ না করায় কাদের জায়গা হয়েছে তা তৃণমূলের কর্মীদের কাছে অস্পষ্টতা রয়েই গেছে।

দলের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের ঠিক দুই দিন পূর্বে অর্থাৎ ২৭ ডিসেম্বর বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনের মাধ্যমে জেলায় আবুল হাসানাত আবদুল্লাহকে সভাপতি ও তালুকদার মো. ইউনুসকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি গঠিত হয়।

পূর্ণাঙ্গ কমিটির খসড়া আকারে কেন্দ্রে জমা দেয়া হয়েছিল সম্মেলনের পরপরই। কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় এতোদিন দুই নেতা চালাচ্ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ।

সাড়ে তিন বছর পর বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন পায়। কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের তারিখ পেছানোর দিনেই শনিবার ৭১ সদস্যবিশিষ্ট এই কমিটির অনুমোদন দিয়েছে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ।

শনিবার প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা গণভবনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহকে সভাপতি এবং অ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুসকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্যবিশিষ্ট জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে জেলা যুবলীগের সভাপতি জাকির হোসেন পেয়েছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদ, সাবেক জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম মহিউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে সাহাব আহম্মেদ। তথ্য ও গবেষণা পদ পেয়েছেন জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম শাহীন, প্রচার সম্পাদক হয়েছে শহর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সহ-প্রচার সম্পাদক পদ পেয়েছেন ছাত্রলীগ বরিশাল জেলার সাবেক আহ্বায়ক মিলন ভূইয়া।

কার্যনির্বাহী সদস্য পদ পেয়েছেন সেরনিয়াবাত আশিক আব্দুল্লাহসহ জেলার আওয়ামী লীগ দলীয় চেয়ারম্যানরা।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য অ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুস বলেন, শনিবার প্রধানমন্ত্রী পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেছেন। যদিও ২০১২ সালে কমিটির খসড় কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছিল। দীর্ঘ দিন পর হলেও কমিটি ঘোষণার পর কর্মীদের মধ্যে চাঙ্গাভাব দেখা দেবে।

হাসানাত পরিবারের পাঁচ সদস্যের বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, যোগ্যতার ভিত্তিতেই তাদের দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 6261 বার