April 16, 2018 9:06 pm A- A A+

সাগরদীতে স্বামী সন্তানকে অচেতন করে প্রেমিকের সাথে স্ত্রীর পলায়ন: মামলা দায়ের

অন-লাইন ডেস্কঃ

বরিশাল নগরীর সাগরদীতে স্বামী সন্তানকে অচেতন করে প্রেমিকের সাথে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগে স্ত্রী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।গতকাল বরিশাল চীফ মেট্রোপলিটন আদালতে মামলাটি দায়ের করেন সাগরদী বাজার এলাকার বাসিন্দা প্রবাসী জহিরুল হক রিপন।আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশ ইনভেষ্টিগেশন অফ ব্যুরো(পিবিআই)কে তদন্তের আদেশ দেন।মামলার আসামিরা হল,নলছিটি থানাধীন রায়পুরা গ্রামের বাসিন্দা বাদির স্ত্রী মিতু আক্তার,শালিকা তামান্না,শ্বাশুড়ি শাহিনুর বেগম ও শ্বশুর মোসলেম সরদার।মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই কাবিন রেজিষ্ট্রির মাধ্যমে জহিরুল হক রিপনের সাথে বিবাহ হয় মিতু আক্তারের।বিয়ের কয়েকদিন পরই দুবাই চলে যায় রিপন।বিয়ের পূর্বে রিপন একটি বিয়ে করেছিলো এবং তার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।তাই দুবাই যাওয়ার আগে রিপন তার ছেলেকে দেখাশোনার জন্য নতুন স্ত্রী মিতু আক্তারের কাছে রেখে যায়।রিপন দুবাই যাওয়ার পর স্ত্রী মিতু পরকিয়া প্রেমে আসক্ত হয়। গত ৬ মার্চ ছেলেকে বাসায় ফেলে রেখে কাউকে কিছু না বলে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে দুবাই থেকে দেশে আসে রিপন।এরপর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজির পর ১৪ মার্চ ঢাকায় প্রেমিকের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়।এসময় মিতু স্বামীকে জানায়, তার পরিবারের বুদ্ধিতে এমনটা করেছে।ভবিষ্যতে আর করবেনা বলে হলফনামা দিলে মিতু আক্তারকে পুনরায় বাড়িতে ফিরিয়ে আনে রিপন।ওই দিনই দুপুরে লেবুর রসের মধ্যে চেতনানাশক দ্রব্য মিশিয়ে স্বামী ও ছেলেকে খাইয়ে দেয় মিতু।পিতা-পুত্র অচেতন হয়ে পড়লে মিতু আবার ঘর ছাড়ে। রাত সাড় ৭টায় রিপনের জ্ঞান ফিরলে স্ত্রী মিতুকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি।এসময় রিপন দেখতে পায় স্ত্রী মিতু বাসায় থাকা নগদ ২ লাখ টাকা,১লাখ ১৫ হাজার টাকা মুল্যের ল্যাপটপ,৭৫ হাজার টাকা মুল্যের একটি মোবাইল ফোন,২লাখ ৫০ হাজার টাকা মুল্যের স্বর্নালংকার,১লাখ ৫০ হাজার টাকা মুল্যের একটি মুভি ক্যামেরা ও আরো ১ লাখ টাকার বিভিন্ন মালামাল নিয়ে পুনরায় পালিয়ে যায়।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 131 বার