May 5, 2018 1:27 pm A- A A+

কলাপাড়ায় নারকীয় দখল সন্ত্রাস:দিনভর অবরুদ্ধ প্রতিবন্ধী পরিবার

অনলাইন ডেস্কঃ

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের নোমরহাট বাজারে চলছে নারকীয় দখল সন্ত্রাস।প্রতিবন্ধী রুহুল আমিন ওরফে পাখি এবং তহমিনা দম্পতির ১৫ বছরের ভাতের হোটেলসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লাপাত্তা করে দেয়া হয়েছে।বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দরিদ্র অসহায় এ পরিবারের পাঁচজনের জীবিকার সব পথ বন্ধ হয়ে গেছে।শুক্রবার দিনভর তাদের অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।এমনকি দোকানপাটের মালামালসহ ঘরের-খুটি,আসবাবপত্র সব নিয়ে গেছে।একই এলাকার আবুবকর ও মামুন এখন ওই জায়গায় দোকান তুলেছে। রুহুল আমিন এখন তার স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে কলাপাড়ায় বিভিন্ন দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রতিকারের জন্য। খাওয়া-দাওয়া নেই।শুধু চোখের পানি ঝরাচ্ছেন এ দম্পতি। রুহুলের ভাষায়,‘স্যার আমি একটা প্রতিবন্ধী।স্যার বউ লইয়া ১৫/১৬ বছর ভাতের হোডেল করছিলাম।পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমি লিজ নিয়ে সেইখানে করা হোডেল ভাইঙ্গা নুরুল ইসলামের দুই ছেলে আবুবকর ও মামুন ২০-২২ সন্ত্রাসী লইয়া নতুন ঘর উডাইছে।মোরে পাইলে মাইর্যা ফালাইবে।’৫৪/এ পোল্ডারের পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধের স্লোপের পাশে ২৩৪ নম্বর খতিয়ানের ২৩৯ নম্বর দাগের তিন শতক করে স্বামী-স্ত্রী উভয়ের নামে ডিসিআরও রয়েছে।রুহুল জানায় তিনি আওয়ামী লীগের সদস্য যার কার্ড নম্বর ৮৪৭০৭৪।পশ্চিম ধানখালী গ্রামের এ পরিবারটি এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।জীবিকার অবলম্বন দখল করে নেয়া হয়েছে।রুহুল আমিন আরও অভিযোগ করেন গত ২৯ এপ্রিলের নির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থন না করায় তাঁকে এমন দশা করা হয়েছে।এব্যাপারে অভিযুক্তদের একজন আবুবকরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান,আমি আমার নিজের ঘর সংস্কার করেছি।পাখির কোন ঘর নেই।সে ভাড়াটিয়া ছিল।ঘর ছাড়তে বললে ছাড়ছিল না।সকল কাগজপত্র রয়েছে।ওর অভিযোগ সম্পুর্ণ মিথ্যা।ওরে খুব বেশি ভালবাসতাম।আসলে ও (পাখি) অসভ্য বলেও আবুবকর মন্তব্য করেন।অন্যের তালে এখন মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে ঘুরছে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 203 বার