May 14, 2018 10:04 pm A- A A+

পুলিশ কনেস্টবল নাইম ও মাদক বিক্রেতা রনির নেতৃত্বে অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছে সাংবাদিক এস এম রফিক

বানী ডেস্কঃ

পুলিশ কনেস্টবল নাইম ও মাদক বিক্রেতা রনির নেতৃত্বে অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছে সাংবাদিক এস এম রফিক।এঘটনায় পুলিশি আটকের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানা ঘেড়াও এর হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীদের হোতা লিটু।সাংবাদিক রফিক দৈণিক আমাদের বরিশাল পত্রিকার প্রকাশক-সম্পাদক।আহত এস এম রফিককে শেবাচিম হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে।এব্যাপারে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান,তার মাথায় ধারালো অস্ত্রের কোপে জখম বেশ গুরুতর এবং সাতটি সেলাই দিতে হয়েছে যেকারণে আমরা তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছি।এদিকে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী মুশফিকুর রহমানসহ একাধিকসূত্র আরো জানায়,বটতলা বাজার এলাকায় নান্টুর দোকানে ফল কিনতে যায় রফিক।এসময় ফল নষ্ট থাকার কারণে তা পরিবর্তন করে দিতে বলায় দোকানি তানজিল রনি রাজি না হওয়ায় উভয়ের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়।একপর্যায়ে রনি এবং পাশে থাকা নাইম ক্ষিপ্ত হয়ে দোকানে বসার টুল দিয়ে রফিককে আঘাত করে।এরপর উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে দোকানে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে সাংবাদিক রফিকের মাথায় আঘাত করা হয় এবং পুলিশ কনেস্টবল নাইম রফিকের দুহাত ধরে রাখে।শুধু তাই নয় ঔ কনেস্টবল স্থানীয় দোকানদার শফিক,রাজিব ও তাদের হোতা লিটুসহ পুনুরায় রফিকের উপর লাঠি নিয়ে হামলা করে।পরবর্তীর্তে অবস্থার বেগতিক দেখে সন্ত্রাসী চক্রটি সটকে পরলে অন্যান্য দোকানীর সাংবাদিককে উদ্ধার করে তার মোবাইলের মাধ্যমে সহকর্মী সাংবাদিকদের খবর দেয়।এদিকে নাইম ও রনির ব্যাপারে অনুসন্ধানসূত্রে জানা গেছে,কনেস্টবল নাইমকে চাকুরীর আগে একাধিকবার বটতলা পুলিশ ফাড়িতে আটক করা হয়েছিলো মাদক ও কোপাকুপির ঘটনায়।চাকুরী হওয়ার পরও চরিত্র পাল্টায়নি তার।সম্প্রতি বরিশাল নথুল্লাবাদ ফিসারী সড়ক পুলিশের একটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে।তার বাসা বটতলা হওয়ায় পুরানো সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে তৈরী করেছে শক্তিশালী সন্ত্রাসী সিন্ডিকেট।তার বিরুদ্ধে এ হেন অভিযোগ শুধু নয় সম্প্রতি কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলতে ব্যাপক তোড়জোড় করে ব্যর্থ হয় এবং ঔ ছাত্রীর অভিভাবক এবং স্থানীয়দের তোপের মুখে সে কুকর্ম থেকে সে বিরত হওয়ার পরই এঘটনাটি ঘটায়।অপরদিকে সন্ত্রাসী রনির ব্যাপারে একাধিক সুত্র জানায়,রনি বেশ কিছুদিন আগে নব আদর্শ স্কুল মাঠ থেকে মাদকসহ ধরা পড়ে এবং বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাস ভাংচুরের ঘটনায় নেতৃত্বে ছিলো।শুধু তাই নয় এই তানজিল রনির বটতলা হালিমাখাতুন স্কুলের সামনে তার ইভটিজিংয়ের সক্রিয় সিন্ডিকেট রয়েছে।সাংবাদিক এস এম রফিকের উপর উপযুপরি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় কোতয়ালী থানার এসি শাহনাজ পারভিন বলেন,দোষী যারা তাদেরকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে হোক সে পুলিশ বা অন্য কেউ।এসময় তিনি আরো বলেন,আমি বিষয়টি ফোনে জানার পর দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছি এবং এ ঘটনায় আটকও আছে।উক্ত ঘটনায় বরিশাল টেলিভিশন মিডিয়া এসোসিয়েশনের সভাপতি মো:হুমায়ুন কবির,সাধারণ সম্পাদক আকতার ফারুক শাহিন ও যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শেখ শামিম দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জোড় দাবি জানান।একইসাথে প্রতিবাদ জানিয়েছে বরিশাল সাংবাদিক পরিষদের সভাপতি ফারুক লিটু ও সাধারন সম্পাদক রাইসুল ইসলাম অভি এবং প্রচার সম্পাদক এম.এস.আই লিমন সহ প্রেস ক্লাবের সাংবাদিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 275 বার