June 6, 2018 7:14 pm A- A A+

বেতাগীতে নজরদারী সত্ত্বেও অবৈধভাবে চলছে জাটকা নিধন

বানী ডেস্কঃ

বরগুনা বেতাগীতে রমজানকে কেন্দ্র করে জাটকার বাজার ঝমঝমিয়ে চলছে জাটকা নিধন প্রক্রিয়া।বরগুনা ও বেতাগী সহ দক্ষিণঞ্চলে উপকূলের নদ-নদী ও সাগর মোহনা থেকে ১৫ দিন ধরে নির্বিচারে জাটকা নিধন করা হচ্ছে।দক্ষিণাঞ্চলের বাজারগুলোতে প্রতিদিন হাজার হাজার মণ জাটকা বিক্রি হচ্ছে। এতে ইলিশ উৎপাদনে মারাত্মক ধস নামতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন মৎস্য বিশেষজ্ঞেরা।সরকার ইলিশ মাছ রক্ষায় উপকূলের নদ-নদীতে সাড়ে তিন ইঞ্চির কম ফাঁসের জাল ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।কিন্তু বর্তমানে উপকূলের নদ-নদীতে ছোট ফাঁসের জাল নিয়ে প্রতিদিন লাখ লাখ জাটকা ইলিশ নিধন করা হচ্ছে।বরগুনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা দেওয়া তথ্যনুযায়ী,ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য গত বছরের ১ নভেম্বর থেকে আগামী ৩০ জুন প্রর্যন্ত উপকূলীয় এলাকার নদ-নদী ও সাগর মোহনায় জাটকা মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার।জাটকা ধরার নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন জেলেদের পুনর্বাসনে উপকূলের তিন লাখ ৬৬ হাজার জেলে পরিবারকে মাসিক ৫০ কেজি করে পাঁচ মাস (ফেব্রুয়ারী থেকে জুন) খাদ্য সহায়তা দেওয়ার জন্য ৯১ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন চাল সহায়তা চেয়ে প্রস্তাব ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।১৯ জেলার ১০০টি উপজেলায় এই সহায়তা দেওয়া হবে।মৎস্য সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী,নিষেধাজ্ঞাকালীন জাটকা ইলিশ ধরা,সংরক্ষণ,পরিবহন ও বিপণন দন্ডনীয় অপরাধ।কিন্তু এমন দন্ডবিধি থাকা সত্ত্বেও পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব হয়নি জাটকা নিধন প্রক্রিয়া।বঙ্গোপসাগরের তীর ঘেষে গড়ে ওঠা বরগুনার বেতাগী উপজেলা বিষখালী,পায়রা ও বলেশ্বর এই তিনটি নদীর মোহনায় অবস্থিত।আর এসব কারনেই বছওে বেশ ইলিশ পাওয়া যায় বেতাগী উপজেলার এই মোহনা নদী থেকে।বেতাগী উপজেলার কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে,এসব এলাকার নদ-নদী ও বাজারগুলোতে প্রতিদিন কয়েক শত মণ জাটকা বিক্রি করা হচ্ছে।ছোট ফাঁসের কারেন্ট জাল ও ভাসাজাল,সাইনজাল দিয়ে বলেশ্বর,বিষখালী ও পায়রা নদীতে ধরা হচ্ছে শত শত মণ জাটকা ইলিশ এবং একই সাথে স্থানীয় বাজারে রমজান উপলক্ষে চরা দামে বিক্রি করা হচ্ছে।বেতাগীর মোকামিয়া বাজার ঘুরে দেখা যায় ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা প্রতিকেজি দামে বিক্রি হচ্ছে জাটকা ইলিশ।স্থানীয় ক্রেতা জনাব হাসিবুর রহমান বলেন সবাই চায় রমজানে একটু ভাল খাইতে রাতে সেহরী খাই,সারাদিন রোজা রাখি তাই দাম বেশি হলেও না কিনে পারি না।এমন অনৈতিক জাটকা নিধনের ব্যাপারে বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মর্কতা জনাব মোঃরাজীব আহসান এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,উপজেলা মৎস্য কর্মর্কতার সাথে ভ্রাম্যমান টিম সর্বদা কাজ করছে ভিবিন্ন বাজারে অভিজান চালিয়ে দন্ডায়মান ও জরিমানা করা হচ্ছে একই সাথে নৌ পথে নৌবাহিনী টিমসহ উপজেলা মৎস্য অফিস থেকে নজরদারী চলছে।উপজেলা মৎস্য কর্মর্কতা জনাব মোস্তফা আল রাজীব বলেন এই আট দিনের অভিযানে প্রায় বাজার নদী মিলিয়ে ২০০০০ টাকা জরিমানা ও ১৪০০ মিটার জাল আটক করা হয়েছে,এছাড়াও আমাদের অভিজান চলমান আছে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 66 বার