June 7, 2018 8:49 pm A- A A+

পবিপ্রবি কর্মকর্তার তথ্য গোপন;চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা

বানী ডেস্কঃ

হুমায়ুন কবির।বরিশাল মহানগরের দক্ষিণ আলেকান্দার বাসিন্দা।পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে ২ মাসের জন্য ৮ লাখ টাকা ধার দেন পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ বিভাগের উপ-পরিচালক মাহফুজুর রহমান সবুজকে।দীর্ঘ সময় গড়িমসির পর টাকা ফেরত দিতে না পেরে চলতি বছরের ৫ জানুয়ারির একটি চেক দেন হুমায়ন কবিরকে। কিন্তু ৭ ফেব্রুয়ারি ব্যাংক থেকে চেকটি ডিজঅনার হলে সবুজের বিরুদ্ধে বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন তিনি।আরও একাধিক ব্যক্তির নিকট থেকে ব্যবসা ও চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা নিয়ে তা আর ফেরত না দেয়ায় অনেকেই পবিপ্রবি প্রশাসনের নিকট এর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করেছেন।এরূপ ব্যক্তিদের নিকট থেকে সংগৃহীত বিভিন্ন অডিও রেকর্ডিংয়ে মাহফুজুর রহমান সবুজকে কখনও ইউজিসির চেয়ারম্যান আবার কখনও আওয়ামী লীগ নেতাদের সুপারিশে চাকরি প্রদানের প্রলোভন দিতে শোনা যায়।
সূত্রমতে,এসব প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে সবুজ ইতিমধ্যে অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রয়েছে জেল খাটার তথ্য গোপন করে চাকরিতে থাকার মতো মারাত্মক অভিযোগ।২০১৬ সালের ১৬ অক্টোবর স্ত্রীর দায়ের করা নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় মাহফুজুর রহমান সবুজকে গ্রেফতার করে পটুয়াখালী জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।এ বিষয়ে অনুসন্ধানকালে পটুয়াখালী জেলা কারাগারের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো:কাওসার স্বীকার করেন যে,মাহফুজুর রহমান সবুজ পটুয়াখালীর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে দায়ের করা মামলায় ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসের ১৬ তারিখ থেকে ২৭ তারিখ পর্যন্ত পটুয়াখালী কারাগারে আটক ছিলেন।অভিযুক্ত মাহফুজুর রহমান সবুজ মামলার কথা স্বীকার করে বলেন,সে এখন মাত্র এক লাখ টাকা পাবে।বাকি টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।এ সময়ে অন্যান্য অভিযোগের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি ফোন কেটে দিয়ে তা বন্ধ করে রাখেন।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 57 বার