August 25, 2018 6:02 pm A- A A+

শ্রমিক নেতার মুক্তির দাবিতে আন্দোলনে যাচ্ছে শ্রমিক সংগঠন

বানী ডেস্কঃ

শ্রমিক নেতা সবুর খান সবুজকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ফুসে উঠেছে শ্রমিক সংগঠনগুলো।তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তির দাবিতে রোববার (২৬ আগস্ট) সকাল ১০টায় রুপাতলীতে প্রতিবাদ মানববনন্ধন কর্মসূচি পালন করবে রুপাতলী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি,শ্রমিক সংগঠনগুলো এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ,শ্রমিক লীগের নেতারা।নেতারা জানিয়েছেন,সবুর খান সবুজের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা না হলে পুরো দক্ষিণাঞ্চলে বাস ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হবে।২/১ দিনের মধ্যেই সেই কর্মসূচির ঘোষণা আসবে বলে জানিয়েছেন বরিশাল জেলা বাস-মিনিবাস-মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা।শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ জানান,রাজনৈতিকভাবে শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সবুর খান সবুজকে হেয় ও হয়রানি করার জন্য তাকে আসামী করে দ্রুত গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে নলছিটি থানা পুলিশ।মূলত তিনি এই ঘটনাটির একটি সুষ্ঠু সমাধান করতে চেয়েছিলেন।তার এই উদ্যোগকে কাজে খাটিয়ে নলছিটি থানায় ডেকে নিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে।সুলতান মাহমুদের দাবি,অপসোনিনের নিরাপত্তাকর্মীকে মারধরের ঘটনার পিছনে সবুর খান সবুজের জড়িত থাকার প্রশ্নই আসে না।জানা গেছে-হামলাকারীদের গ্রেফতারে কার্যত কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি নলছিটি পুলিশ।বরং সবুর খানকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে মামলার আসামী করে গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।রুপাতলী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওছার হোসেন শিপন জানিয়েছেন,নিরপরাধ শ্রমিক নেতা সবুর খান সবুজের মুক্তি না হলে পুরো দক্ষিণাঞ্চলে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হবে।তার মতে,ঘটনার সঠিক বিচার আমরাও চাই।কিন্তু হামলাকারীদের বাদ দিয়ে রাজনৈতিকভাবে সবুর খান সবুজকে গ্রেফতার করে হয়রানি চাই না।মামলার মূল অভিযুক্তদের ধরাছোয়ার বাইরে রেখে শ্রমিক নেতাকে আগেই গ্রেফতারের বিষয়ে জানতে চাইলে নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন বলেন-তাকে হামলাকারী হিসেবে আটক করা হয়নি।মামলার বাদী দাবি করেছেন-তিনি (সবুর খান সবুজ) হামলার পরিকল্পনায় অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন।সে কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।সবুর খান সম্পৃক্ত এমন অভিযোগের প্রাথমিক তদন্তে কি প্রতীয়মাণ হয় জানতে চাইলে সাখাওযাত হোসেন বলেন,একটা লোককে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করা হয়েছে।সেখানে প্রাথমিক তদন্তের দরকার আছে বলে মনে করি না।কিন্তু যারা হামলা করেছে তাদের আটক না করে হামলায় সম্পৃক্ত নয় এমন কোন ব্যক্তিকে আটক আইন সম্মত কিনা প্রশ্নের জবাবে নলছিটি থানার ওসি জানান,তিনি হামলায় সরাসরি জড়িত ছিলেন না তা আমরাও জানি।কিন্তু মামলার বাদী সম্পৃক্ততার কথা বললে আমাদের কিছু করার থাকে না।গ্রেফতার বরিশাল জেলা বাস-মিনিবাস-মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সবুর খান সবুজের ছেলে আসাদুজ্জামান রাতুল জানান,মামলার এজাহারে আব্বুকে (আব্দুস সবুর খান সবুজ) পাঁচ নম্বর আসামী করা হয়েছে।কবে মামলা হয়েছে তাও তিনি জানতেন না।তাকে এসআই মহিউদ্দিন বাসায় এসে কথা শোনার কথা বলে ডেকে নিয়ে যান।আব্বু নিজের গাড়িতে থানায় গেলে তাকে জানানো হয় সোহাগকে মারধরের মামলায় তাকে আটক করা হয়েছে। রাতুলের দাবি,চোর ধরেছে অপসোনিনে।সেই চোরেরা মারধর করেছে অপসোনিনের নিরাপত্তাকর্মীকে।সেখানে আব্বুর সম্পৃক্ততা কিভাবে সেটাই বোধগম্য নয়।ওদিকে মামলার বাকি চার আসামী রুপাতলী হাউজিংয়ের বাসিন্দা সাকিবুল ইসলাম ওরফে সাকিব,সাইমুন হোসেন ওরফে দিপু,ছাব্বির হোসেন ওরফে রাব্বু ও রাকিব হোসেনকে গ্রেফতার করতে পারেনি নলছিটি থানা পুলিশ।প্রসঙ্গত,অপসোনিন ফার্মা লিমিটেডের নিউ প্লান প্রজেক্টের নিরাপত্তাকর্মী সোহাগ হাওলাদারকে ২২ আগস্ট রাতে কুপিয়ে আহত করে রুপাতলী হাউজিংয়ের বাসিন্দা সাকিবুল ইসলাম ওরফে সাকিব,সাইমুন হোসেন ওরফে দিপু,ছাব্বির হোসেন ওরফে রাব্বু ও রাকিব হোসেন।এ ঘটনায় অপসোনিন ফার্মা লিমিটেডের নিউ প্লান প্রজেক্টের সিকিউরিটি অফিসার শাহ আলম মোল্লা বাদী হয়ে নলছিটি থানায় মামলা দায়ের করেন।মামলায় হামলাকারী চারজন ছাড়াও শ্রমিক নেতা সবুর খান সবুজকে পাঁচ নম্বর আসামী করা হয়।মামলায় হামলাকারী চার আসামীকে এখন পর্যন্ত আটক করতে না পারলেও শ্রমিক নেতা সবুর খান সবুজকে গ্রেফতার করে আদালতে সোর্পদ করে পুলিশ।আদালত সবুর খানকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 44 বার