August 28, 2018 6:31 pm A- A A+

কুয়াকাটায় মেয়াদোত্তীর্ণ বীজ নিয়ে কৃষকদের বিক্ষোভ

বানী ডেস্কঃ

কুয়াকাটার মৎস্য বন্দর আলীপুরে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী বি আর ৪৯,উচ্চ ফলনশীল বীজ ধানের পরিবর্তে মেয়াদোত্তীর্ণ ভেজাল বীজ ধান বিক্রয় করায় বিপাকে পড়েছে কুয়াকাটাসহ উপকূলীয় এলাকার শতাধিক কৃষক।ভূক্তভোগী কৃষকরা এর বিচারের দাবিতে লতাচাপলী ইউনিয়ন পরিষদে সোমবার দিনভর বিক্ষোভ করেন।কৃষক সূত্রে জানা যায়,চলতি পৌষ মৌসুমের জন্য মৎস্যবন্দর আলীপুরের হাজী আবুল কালাম,হাজী চান মিয়া আকন,মাও:আমির শরীফ,মাসুম বিল্লাহ ও শহিদ মুসুল্লীসহ কয়েকজন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বি আর ৪৯,উচ্চ ফলনশীল বীজ ধান ক্রয় করে জমি চাষাবাদ করেছে কৃষকরা।সেখানে অসাধু ব্যবসায়ীরা বি আর ৪৯ এর পরিবর্তে বস্তার মার্কা কালি দিয়ে সংস্কার করে বিভিন্ন নম্বরের স্থলে ৪৯ বসিয়ে তাদেরকে ভেজাল ধান দিয়েছে।এমনকি মেয়াদোত্তীর্ণ ২০১৬ইং সালের ১৬ কেটে ১৮ লিখে তা বিক্রয় করেন তাদের কাছে।এতে শত শত একর জমির ধানের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে।কৃষক এনায়েত,আঃ মালেক আকন,নজির,আবুল কাশেম,আলমগীর ও রুস্তুম আলীসহ শতাধিক ভূক্তভোগী জানান,মেয়াদোত্তীর্ণ ভেজাল বীজ ধান রোপনের ফলে এক মাসের মধ্যে ওই সকল বীজে ধান দেখা গেছে।যে কয়টি বীজের গোছা লাগানো হয়েছে,সে কয়টি গোছায় ধান হলে তাদের মত গরীব কৃষক লোকসান ও ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে জীবন যাপন করতে হবে তাদের।এসকল কৃষকদের মধ্যে অনেকেই নগদ টাকায় জমি রেখে চাষাবাদ করেছে।কেউ আবার সাত বছরের জন্য খায়খালাশি জমি রেখে চাষাবাদ করেছে।তাদের চাষাবাদকৃত এক একর জমিতে খরচ হয়েছে প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা।কুয়াকাটা পৌরসভা ও লতাচাপলী ইউনিয়নের শতাধীক কৃষক ১শত পঞ্চাশ একর জমিতে বি আর ৪৯ বীজ ধানের চাষাবাদ করেছে বলে তাদের আনুমানিক ধারনা।এতে প্রায় ওই সকল কৃষকদের অর্ধকোটি টাকার লোকসান গুনতে হবে।অনেক কৃষক অশ্রু বিজড়িত কন্ঠে বলেন,এবছর দু’মুঠো ভাত খাওয়াতো দুরের কথা লোকসান আর ঋণের বোঝা পরিশোধ করতেই আমাদের জীবন মরণ সমস্যা হয়ে দাড়াবে।এব্যাপারে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন,বিষয়টি আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি এখন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে যতটুকু সহযোগিতা করা সম্ভব তা করা হবে।লতাচাপলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো.আনছার উদ্দিন মোল্লা বলেন,ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা আমার কাছে আসছে আমি বীজ বিক্রেতাদেরকেও ডেকে ছিলাম,সেখানে কৃষি কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন সকলের উপস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের তালিকা করতে বলেছি এবং সকলের পরামর্শ অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্থদের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চালাচ্ছি।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 50 বার