August 29, 2018 6:22 pm A- A A+

নিজেকে জীবিত প্রমাণে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন রমনী মোহন

বানী ডেস্কঃ

কাঁঠালিয়ায় রমনী মোহন ঘরামী নামের ৬২ বছর বয়সী জীবত ব্যক্তিকে নির্বাচন কমিশনের ভোটার তালিকায় মৃত ঘোষণার অভিযোগ পাওয়া গেছে।ওই ব্যক্তি পূনরায় ভোটার তালিকায় নাম অর্ন্তভুক্তির জন্য নির্বাচন অফিস,স্থানীয় চেয়ারম্যান,মেম্বার,চৌকিদারসহ বিভিন্ন লোকজনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগে জানা যায়,রমনী মোহন ঘরামী,পিতা-মৃত.পার্বতী চরন ঘরামী,মাতা-মৃত.সুরবালা,গ্রাম-আওরাবুনিয়া,ওয়ার্ড-৭,ইউনিয়ন-আওরাবুনিয়া,কাঁঠালিয়া,ঝালকাঠি।তার ভোটার এলাকা নং-১৬৮,ভোটার ফরম নং-৪২১৪৩৩১৫৯৬২০৭,এনআইডি নং-১৯৫৬৪২১৪৩৩১৫৯৬২০৭,জন্ম তারিখ-১৬.০৯.১৯৫৬ খ্রি:।গত কয়েকদিন পূর্বে জরুরী কাজে ভোটার তালিকা প্রয়োজন হওয়ায় তাতে মৃত লিপিবদ্ধ দেখে হতবাক হন রমনী মোহন।পরে স্থানীয় নির্বাচন অফিসের ওয়েবসাইটেও তাকে মৃত লেখা দেখেন তিনি।রমনীর অভিযোগ,একটি স্বার্থান্বেষী মহল পরিকল্পিত ভাবে আমাকে মৃত বানিয়েছেন।সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মো.অলিউর রহমান জানান,রমনী মোহন ঘরামী একজন হতদরিদ্র মুক্তিযোদ্ধা (গেজেটভুক্ত নন)।এ বছরের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির ক-তালিকায় তার নাম অন্তর্ভূক্ত রয়েছে।আবেদন পত্রে তিনি জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদর্শনসহ সশরীরে সাক্ষাৎকার বোর্ডে উপস্থিত হয়েছেন।পান বিক্রি করে তিনি সংসার চালান।২০১৬ সালে স্থানীয় নির্বাচনে ভোট দিতে ভোটার তালিকায় তার নাম খুঁজে না পাওয়ায় মনে করা হয়েছিল মুদ্রণজনিত কারণে নাম বাদ পড়েছে।উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জয়ন্ত্রী রানী চক্রবর্তী জানান,নিয়মানুযায়ী ভোটার তালিকা থেকে নাম কর্তনের জন্য নিদিষ্ট ১২ নম্বর ফরম পূরণ করে কমিশনে পাঠানোর পর কর্তন হয়ে আসে।রমনী মোহন ঘরামীর বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।কীভাবে এটা হলো।তবে ভুল হলে কমিশনে পাঠালে ভোটার পুনরায় অর্ন্তভুক্তি হয়ে আসবে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 24 বার