August 30, 2018 5:21 pm A- A A+

যৌতুক লোভী স্কুল শিক্ষকের নির্যাতনের শিকার অসহায় নারী

বানী ডেস্কঃ

মুলাদীতে যৌতুক লোভী স্কুল শিক্ষকের অমানুষিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এক অসহায় নারী।উপজেলার বিডিসিএইচ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মলয় বল্লবের অমানুষিক নির্যাতনে চরকালেখান ইউনিয়নের মুক্তেশ্বর গাছার মেয়ে মিতু রানী এক সন্তান নিয়ে বিচারের দাবীতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। স্থানীয় সালিশ, থানা পুলিশ,উপজেলা প্রশাসন,আদালতসহ বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরে বিচার না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন এবং সন্তান নিয়ে পিতার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।জানা গেছে ২০১৪ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি মিতু রানীর সাথে গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার শিমুল রাড়ি গ্রামের মৃত মতিলাল বল্লবের পুত্র ও বিডিসিএইচ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মলয় বল্লবের বিয়ে হয়।বিয়ের সময় যৌতুক লোভী মলয় বল্লব তার শ্বশুর বাড়ি থেকে স্বর্ণালংকারসহ কয়েক লক্ষ টাকা যৌতুক নেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।বিয়ের কয়েক দিন পর থেকে মলয় বল্লব বিভিন্নভাবে তার স্ত্রীর মাধ্যমে শ্বশুরের কাছ যৌতুক আদায় করে।টাকা দিতে না পারলেই মিতুর ওপর নেমে আসত অমানুষিক নির্যাতন।বিবাহিত জীবনে তাদের একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হলে মিতুর ওপর নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যায়।ছেলে সন্তান জন্ম দিতে না পারায় মলয় বল্লব তার স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার ভয় দেখায় এবং পরবর্তীতে টাকা পরিশোধ করার কথা বলে শ্বশুরের কাছ থেকে প্রায় ৩ লক্ষ টাকা নেয়।টাকা নেওয়ার পর মলয় বল্লব ২০১৭ সালের ২৮ জুলাই পুনরায় ৫ লক্ষ টাকা দাবী করে।কিন্তু দরিদ্র পরিবারের পক্ষে এত টাকা দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানালে মলয় চরম ক্ষিপ্ত হয় এবং তার স্ত্রী মিতুকে মারধর করে কন্যা সন্তানসহ ঘর থেকে বের করে দেয়।ওই ঘটনার পর থেকে মিতু তার বাবার বাড়িতে অবস্থান করলেও মলয় তার কন্যা কিংবা স্ত্রীর কোনো খোজ খবর না নিয়ে পুনরায় বিয়ে করে।স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ের সংবাদ পেয়ে মিতু গত ২৬ জুন যৌতুকের টাকা ফেরৎ এবং কন্যার ভরন পোষনের দাবীতে বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করে।পরে মলয় বল্লব স্থানীয় প্রভাবশালীদের নিয়ে মিতুর কাছ থেকে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয় এবং দুজনের সম্মতিতে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে বলে স্টাম্পে লিখে নেয়।বিষয়টি জানতে পেরে মিতু টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য এবং কন্যার ভরন পোষনের দাবীতে গত ২৬ আগস্ট উপজেলার নির্বাহী অফিসারের কাছে আবেদন জানায়।ইউএনও বেশ কয়েকবার মলয় বল্লবকে তার কার্যালয়ে তলব করলেও বিভিন্ন তালবাহানায় সে সময়ক্ষেপন করছে।এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন জানান,মলয় বল্লবকে পুনরায় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্কুল শিক্ষক মলয় বল্লব দ্বিতীয় বিয়ের কথা স্বীকার করে জানান আমি কোনো যৌতুক গ্রহণ করেনি।আমাকে হয়রানির চেষ্টা করা হচ্ছে। অপরদিকে স্কুল শিক্ষকের যৌতুক দাবী এবং কন্যা সন্তান জন্ম দানের কারনে স্ত্রীকে নির্যাতনের ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।বিদ্যালয়ের অভিভাবকরা অবিলম্বে স্কুল শিক্ষক মলয় বল্লবের অপসারনের দাবী জানিয়েছেন।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 35 বার