September 1, 2018 4:26 pm A- A A+

প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিকিৎসা সহায়তা চাইলেন মেধাবী ছাত্রী ইতি

বানী ডেস্কঃ

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিঃক্ষনে বেঁচে থাকার জন্য ছটফট করতে থাকা মেধাবী স্কুল ছাত্রী ইতি আক্তার (১৬) বাঁচতে চায়।যে বয়সে স্কুল জীবনের সহপাঠীদের সাথে পড়াশুনা নিয়ে ইতি আক্তারের ব্যস্ত থাকার কথা,ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে সেই সময়ে ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে গত তিন বছর ধরে জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত তাকে লড়াই করতে হচ্ছে বেঁচে থাকার জন্য।ক্রমেই টিউমারের অংশ বড় হওয়ায় ইতি আক্তারের একটি চোখ বড় ধরে বিকৃত আকার ধারন করছে।দীর্ঘসময়ে চিকিৎসা করাতে গিয়ে ইতি আক্তারের অসহায় দিনমজুর পিতা রুস্তুম আলী পাইক তার সকল সহায়সম্বল বিক্রি করে আজ নিঃস্ব হয়ে গেছেন।সর্বশেষ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন,জরুরি ভিত্তিতে ইতি আক্তারকে ভারতের মাদ্রাজে নিয়ে অপারেশনের ব্যবস্থা করা না হলে তাকে আর বাঁচানো যাবেনা।কিন্তু এজন্য প্রয়োজন বিপুল পরিমান অর্থ।যা অসহায় ইতির পরিবারের পক্ষে যোগাড় করা অসম্ভব হয়ে পরেছে।তাই ইতির উন্নত চিকিৎসার আশা ছেড়ে দিয়েছেন তার দিনমজুর পিতা রুস্তুম আলী।কিন্তু মেধাবী ছাত্রী ইতি আক্তার এখনও উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখছে।তার শতভাগ বিশ্বাস বিশ্বমানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তার বার্তা পৌঁছলে নিশ্চয়ই তিনি (প্রধানমন্ত্রী) উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন।বরিশালের গৌরনদী গার্লস হাই স্কুল এ্যান্ড কলেজের সপ্তম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্রী ইতি আক্তার পৌর সদরের তিখাসার মহল্লার রবিউল ভিলা সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা দিনমজুর রুস্তুম আলী পাইকের ছোট কন্যা।বর্তমানে মেয়ের (ইতি) চিকিৎসার জন্য সর্বস্ত্র খুঁইয়ে নিঃস্ব হয়ে যাওয়া রুস্তুম আলীর সাত সদস্যর অভাবের সংসার চলে পুত্র টুটুল হোসেনের সামান্য একটি চায়ের দোকানের উপার্জিত অর্থে। যেমন নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা।রুস্তুম আলী পাইক জানান,গত তিনবছর পূর্বে তার কন্যা ইতি আক্তার প্রায়ই মাথার যন্ত্রনায় ছটফট করতে থাকে।ওইসময় তাকে (ইতি) প্রথমে গৌরনদী হাসপাতালে ও পরে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসকদের কাছে নেয়ার পর বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরিক্ষার মাধ্যমে ইতির ব্রেন টিউমারের বিষয়টি ধরা পরে।তারা (চিকিৎসক) দীর্ঘদিন ওষুধ সেবনের মাধ্যমে টিউমারটি নিস্কিয় করার চেষ্ঠা করে ব্যর্থ হন।ক্রমেই টিউমারের আকার বড় হয়ে ইতি আক্তারের একটি চোখ বড় হরে বিকৃত আকার ধারন করতে থাকে।পরবর্তীতে চিকিৎসকের পরামর্শে ইতি আক্তারকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সহ ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসকদের কাছে নেয়া হয়।সকল চিকিৎসকরা প্রথমে অপারেশনের মাধ্যমে টিউমারটি অপসারনের আশ্বাস দিয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরিক্ষা করিয়ে শেষমেষ জানিয়ে দিয়েছেন জরুরি ভিত্তিত্বে ভারতের মাদ্রাজে নিয়ে অপারেশন করানো না গেলে ইতি আক্তারকে বাঁচানো সম্ভব হবেনা।উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে মেধাবী স্কুল ছাত্রী ইতি আক্তারকে বাঁচাতে সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা:টুটুল হোসেন,সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর:০২০০০০২০৮৭৮৬১,অগ্রনী ব্যাংক লিমিটেড,গৌরনদী শাখা,বরিশাল।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 22 বার