September 9, 2018 7:45 pm A- A A+

এলইডি লাইটে ঝুঁকিপূর্ণ রাতের বরিশাল

বানী ডেস্কঃ

বরিশাল নগরীর সড়ক ও মহাসড়কগুলোতে সন্ধ্যা নামলেই চলাচল করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।কারণ অটোরিক্সা,মাহিন্দ্রা,মটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার।এ লাইটের আলো এতটাই তীব্র যে বিপরীত দিক থেকে কিছুই দেখা যায়না।ফলে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা।আর এই লাইট ব্যবহার বন্ধ করতে বরিশাল ট্রাফিক বিভাগ থেকে একাধিকবার উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও ধারাবাহিক অভিযান না হওয়ায় এর ব্যবহার দিনদিন বাড়ছে।চিকিৎসকদের মতে,এই আলো সরাসরি চোখে লাগলে চোখ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে।এমনকি ধীরে ধীরে অন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রকট।নগরীর সিএন্ডবি রোড এলাকার বাসিন্দা লাবু জানান,দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর ধরে মোটরসাইকেলে চলাচল করেন তিনি।চালানোর এত বছরের অভিজ্ঞতা থাকা সত্বেও তিনি এখন মোটরসাইকেল চালাতে ভয় পান।তিনি বলেন,মোটর সাইকেলসহ প্রতিটি গাড়ির হেডলাইটের উপরের অংশে ছিল কালো রং করা।যাতে করে কারও চোখে আলোকরশ্মি না পড়ে এবং যারা গাড়ি চালায় তাদের গাড়ি চালাতে কষ্ট না হয়।এতে করে দুর্ঘটনাও কম হত।বর্তমান যুগে এসে নানা প্রকার লাইটের আলো চোখে এমনভাবে এসে পড়ে যে সামনে কি আসছে কিছুই বুঝা যায় না।এজন্য ভয়ে রাতে এখন আর গাড়ি নিয়ে বের হন না।শুধু তিনিই না বর্তমানে যেকোনো সাধারণ ব্যক্তি রাতে নগরীসহ সড়ক-মহাসড়কে বের হলেই গাড়ির হেডলাইটের যন্ত্রণায় পড়বে।আর যানবাহনের হেডলাইটের এবং এলইডি লাইটের আলোর প্রভাবে রাতে চলাচল অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।নগরীর সর্বত্র দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে নানান ধরনের যানবাহনের সংখ্যা আর সেই সাথে বেড়ে চলছে এলইডি লাইটের ব্যবহার।যানবাহনের সাথে লাগানো এলইডি লাইটের আলো চলাচলের সময় তীব্র আলো চোখে পড়ায় সাধারণ মানুষের পথ চলতে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়।প্রতিনিয়ত মানুষ সড়ক দূর্ঘটনার সম্মুখীন হচ্ছে। দিনদিন যেন এই আলোর কারণে জনজীবনে দুর্ভোগের শেষ নেই।এলইডি লাইটের অধিক ব্যবহারের দিকে ট্রাফিক পুলিশসহ প্রশাসনের কোন মাথা ব্যাথা নেই।মাঝেমধ্যে অভিযান চালালেও তার ধারাবাহিকতা না থাকায় এলইডি লাইটের ব্যবহার কমছে না।রাতে নগরীর ব্যস্ততম সড়ক সদররোড,নতুন বাজার,বটতলা সড়ক,সাগরদী বাজার সড়কসহ প্রায় বিভিন্ন অলিগলি ঘুরে সরেজমিন দেখা যায়,প্রতিটি অটোভ্যান,অটোরিকশা,ইজিবাইক,সিএনজি,মাহিন্দ্রা,নসিমন,করিমন,মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য অনেক যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার।এছাড়াও নগরীর সড়ক ও মহাসড়কে চলাচলকারী বাস,ট্রাক,প্রাইভেটকারসহ কোন গাড়ির হেডলাইটের উপরের অংশে এখন আর কালো রং ব্যবহার করা হয় না।যার কারণে এ সকল গাড়ির আলো সরাসরি বিপরীত দিক থেকে আসা গাড়ির চালক ও পথচারিদের চোখে ধাঁধিয়ে যায়।আর তখনই ঘটে দুর্ঘটনা।এ ব্যাপারে সার্জেন্ট কামরুল বলেন,এলইডি লাইটের ব্যবহার বন্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে।তিনি বলেন,যে সকল যানবাহনে এলইডি লাইট ব্যবহার করা হয় সেগুলো আটক করে লাইট খুলে ফেলা হয়।এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,বিভিন্ন কারণে অনেক সময় অভিযান কার্যক্রম কিছুটা ব্যাহত হলেও অভিযান নিয়মিত চলছে।এ ব্যাপারে তিনি সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন। বিএমপি’র এয়ারপোর্ট থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুর রহমান মুকুল বলেন,সরকারি নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে ট্রাফিক পুলিশের সাথে আমরাও সম্মিলিতভাবে কাজ করছি।এলইডি লাইট দুর্ঘটনার একটি অন্যতম কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, গড়িয়ারপার এলাকায় নিয়মিত চেকপোষ্ট এর পাশাপাশি টহল টিমকেও এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া আছে।তাছাড়া মহাসড়কে ইজিবাইক চলাচল বন্ধের ব্যাপারেও তাদের অভিযান নিয়মিত আছে বলে জানান তিনি।এ ব্যাপারে বিএমপি ট্রাফিক পুলিশের টিআই-১ (প্রশাসন) শামসুল আলম বলেন,আমরা আসলে এলইডি লাইটের ব্যবহার,হাইড্রোলিক হর্ন বা অন্যান্য যে সমস্যা আছে,সেগুলো আমরা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য যা যা করা উচিৎ তা করছি।এলইডি লাইটের ক্ষতিকর দিক এবং চালকদের সচেতনতার জন্য ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে সচেতনতামূলক কর্মসূচী পরিচালিত হচ্ছে।এছাড়া এই লাইটের ব্যবহার বন্ধে আমাদের অভিযান চলমান রয়েছে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট 64 বার