রবিবার, ১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং, রাত ৩:২৭

ঘাতক গোলাম আযমের আত্মীয় আ.লীগের প্রার্থী!

ঘাতক গোলাম আযমের আত্মীয় আ.লীগের প্রার্থী!

dynamic-sidebar

উপজেলা নির্বাচনে যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের আত্মীয়কে আওয়ামী লীগের প্রার্থী করার অভিযোগ তুলেছেন মনোনয়ন-প্রত্যাশীরা।

 

তৃণমূলকে উপেক্ষা করে আসন্ন নবীনগর উপজেলা নির্বাচনে যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের আত্মীয়কে আওয়ামী লীগের প্রার্থী করার অভিযোগ তুলেছেন মনোনয়ন-প্রত্যাশীরা।

শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থীরা।

জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের প্রয়াত আমির গোলাম আযমের নিকটাত্মীয় হাবিবুর রহমান স্টিফেন নবীনগরের বীরগাঁও গ্রামের সোনা মিয়া সরকারের ছেলে ও আমেরিকা-প্রবাসী। তিনি ছাড়াও আওয়ামী লীগ থেকে নবীনগর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে মনোনয়ন কিনেছেন আটজন প্রার্থী।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস বলেন, তৃণমূলের মতামত উপেক্ষা করে কুখ্যাত রাজাকার গোলাম আযমের নিকটাত্মীয় হাবিবুর রহমান স্টিফেনকে দলীয় প্রার্থী করতে মনোনয়ন দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। দলীয় নির্দেশনা উপেক্ষা করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হালিমের প্ররোচনা ও কৌশলে এই কাজটি করা হয়েছে।তিনি আরও বলেন, তিনি (স্টিফেন) ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হওয়ায় তার নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে বাদ দিতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে আবেদন জানিয়েছিলেন স্থানীয় বীরগাঁও ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের পক্ষে মুক্তিযোদ্ধা মো. সামছুল আলম। বীরগাঁও গ্রামে গোলাম আযম প্রতিষ্ঠিত সোবহানিয়া দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা করেন হাবিবুর রহমান স্টিফেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ২৮ জানুয়ারি নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনজন প্রার্থী চূড়ান্ত করার দায়িত্ব ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিমকে দেন দলীয় নেতাকর্মীরা। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হাবিবুর রহমান স্টিফেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা জালাল ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাহরিয়ার বাদলের নাম কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত দেন। কিন্তু হঠাৎ সাংসদ এবাদুল করিম দলের একক প্রার্থী হিসেবে হাবিবুর রহমান স্টিফেনের নাম কেন্দ্রে পাঠাতে বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে নবীনগর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন-প্রত্যাশী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির সহ-সম্পাদক কাজী জহির উদ্দিন টিটো, কেন্দ্রীয় উপকমিটির বন ও পরিবেশবিষয়ক সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এইচ এম আল আমীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বঞ্চিত প্রার্থীরা জানান, স্টিফেনকে বাদ দিয়ে দলের অন্য যেকোনো ত্যাগী নেতাকে দলের মনোনয়ন দিলে তাদের কোনো আপত্তি থাকবে না।

নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হালিম জানান, ওনাকে (স্টিফেন) নিয়ে বিতর্কের তো কোনো কারণ দেখছি না। হাবিবুর রহমান নিজে রাজাকার বা জামায়াতের লোক নন, তাই নৌকা প্রতীক পেলে মুক্তিযোদ্ধা-অমুক্তিযোদ্ধা কোনো ব্যাপার না। সূত্র: ঢাকাটাইমস

28Shares

Count currently

  • 35565Visitors currently online:

Counter Total

Facebook Pagelike Widget

Desing & Developed BY EngineerBD.Net

error: Content is protected !!