বুধবার, ২০শে মার্চ, ২০১৯ ইং, দুপুর ২:৫৩

মুক্তিযুদ্ধের এক অকথিত ইতিহাস “কপিলমুনি “ ৪

মুক্তিযুদ্ধের এক অকথিত ইতিহাস “কপিলমুনি “ ৪

dynamic-sidebar

জাফর মিয়া ভালোভাবে দ্যাখে রাইফেলটায় তেলমালিশ হয়েছে কিনা ঠিকঠাক মতন। কোনাইচ্চা বাইলে মতলেবের দিকে চায়। মতলেব মোটামুটি নিশঙ্ক চিত্তে। ওস্তাদের রাইফেলের পান্নে ত্যালের বাটি উজাড়। কেরাসিন নাইকেল সইর্ষা তিন কিসিমের ত্যাল, গোসলের ত্যাল নাই, আলুভর্তারও ত্যাল নাইক্কা, তয় গুল্লি নাও বাইরোইতে পারে নলের ভিতরে ত্যালের বইন্না, অবশ্য সাফও করছে সাধ্যমত, বাদ বাকী আল্লা ভরসা, এয়াতো বীর রাজাকারগো বন্দুক, মাবুদের বরকত আছে গুল্লি মারতে হয়না জাগায়ে হেইয়ো রুখ যাও গুলি মারদুঙ্গা কইলেই লোকজন সব বক্কিলা। কুদ্দুস, লম্বা চওড়া হাক দেয় জাফর মিয়া আশপাশ গাও গঞ্জের সবটিরে বোলা , ক যে চানতাঁরার মানুষজন সব য্যান এইখানে আইসা দেখা করে, শলাপরামর্শ আছে, নৌকা দুইচার দিনের ভিতরে ডুবাইতে না পারলে ইজ্জতের বিষয়। ক্যাপ্টেন খুশি কিন্তু মেজরসাব আইলে কিন্তুক বিপদ, আর নিশান টানাইছো কি তোর পোলার ত্যানা খাতা? হালার পো জরুরী কামডা হইলো ঝাঁড়ের সবচাইক্কা লম্বা বাশঁটা আনাম দিবি, হ তারপরের কথা হইলো গিয়া নিশান টানাইবি এততো বড় যে লাহোরথন দ্যাহা যায় মাগার বাতাসেও জাগাইতে পারবোনা শ্রদ্ধেয় এহিয়া খান স্যারে জাগাইতে পারবো। বজছোস? কুদ্দুস মাটিতে ঠকাস করে পাও ঠুকে জাফর মিয়াকে সালাম দিয়ে ঘাড় কাত করে, বুজছি ওস্তাদ, অখোন ব্যবস্থা করতাছি, তারপর চ্যাচায়, জাগো বীর রাজাকাররা জাগো খোন্তা কুড়াল যার যা কিছু আছে সব লইয়া আসো চলো বাঁশ ঝাড়ে বাশঁ কাটো নিশান উড়াও, মোলাকাত হোগিয়াতো মেরে বুলবুলি মেরে পাকিস্থান মেরে পাক জমিন কি সাথ.. চড়া গলায় গান ধরে কুদ্দুস, সাথে কয়েক ডজন গলা তাল মিলায়, কপিলমুনির আসমান জমিন ভারী হয়ে ওঠে বীর রাজাকারদের সঙ্গীতে-
বিজন ভালো বলে ভাসানের ম্যালায় গলাছাড়ি চিল্লায় বদর বদর বলি নৌকা ভাসাও হে চলি যায় নাও দক্ষিনে সদাগর সদাগর সরি যাও.. মোসলমরাও পারেনা, বিজন আমিষ খায়না রোজ একটা ফুল দিয়া কারে যেন পূজা দ্যায় আর ভাসানের ম্যালায় এর ওর পক্ষে চ্যাচায়। গাজী এসবদ্যাখে মাঝে মাঝে কিছু কয়না , ভ্যাজাল ঢুকছে ভাসানে, তয় কিছু কওয়ার নাই একসুম সেইগুলান হইবে নির্ভেজাল, ধর্ম যা কয় সমাজ কয় হয়, সমাজ যা কয় ধর্ম চুপচাপ মাথা নাড়ায় অনেক সময় আন্ধারে বোঝা যায়না কোন বাইলে মাথা নড়ে.. তবে দৃষ্টি তীক্ষ্ম গাজী সাইবের ঠাহর করার চেষ্টা কার ফৌজী মীরন খান না মীর কাশিমের, যৌথ হইতে পারে, তাইলে ফৌজী প্রধান কার অনুসারী ?
– এস এম তুষার।।

0Shares

Count currently

  • 67902Visitors currently online:

Counter Total

Facebook Pagelike Widget

Desing & Developed BY EngineerBD.Net