মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০১৯ ইং, বিকাল ৫:৪৭

জাপার সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিনের ভূমিদস্যুতার শিকার লৌহজং নারী ভাইস চেয়ারম্যান

জাপার সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিনের ভূমিদস্যুতার শিকার লৌহজং নারী ভাইস চেয়ারম্যান

dynamic-sidebar

রুহুল আমিন হাওলাদারের নির্দেশে মামলা দিয়ে হাজতবাসে রেখে কুয়াকাটায় কেনা ১৩ শতক জমিসহ

স্থাপনা ঘর আসবাবপত্র লুটে নেয়া,প্রবেশপথ আটকে দখল করে নেয়া, থানায় আটকে রেখে

সাত ঘণ্টা পর মামলা দেয়া,নারী পুলিশ দিয়ে লাঞ্ছিত করাসহবিস্তর অভিযোগ তুলেন

মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান নাজনীন আক্তার স্বর্ণা।

 
ডেস্ক রিপোর্ট

 

জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের বিরুদ্ধে নাজনীন আক্তার স্বর্ণা নামে এক উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান সংবাদ সম্মেলন করেছেন।রুহুল আমিন হাওলাদারের নির্দেশে মামলা দিয়ে হাজতবাসে রেখে কুয়াকাটায় কেনা ১৩ শতক জমিসহ স্থাপনা ঘর আসবাবপত্র লুটে নেয়া, প্রবেশপথ আটকে দখল করে নেয়া, থানায় আটকে রেখে সাত ঘণ্টা পর মামলা দেয়া, নারী পুলিশ দিয়ে লাঞ্ছিত করাসহ বিস্তর অভিযোগ তুলেন মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান নাজনীন আক্তার স্বর্ণা।বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় কলাপাড়া প্রেসক্লাবে লিখিত সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। স্বর্ণা এসব ঘটনায় জাতীয় পার্টির (এরশাদ) সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের মালিকানাধীন কেআর ফ্যাশন ইন্টারন্যাশনালের কুয়াকাটার কেয়ারটেকার কমল হাওলাদার, সহযোগী আনোয়ার হোসেন ওরফে লম্বা আনোয়ার, দলিল লেখক ফারুক ও কর্মচারী টিক্কাকেও দায়ী করেছেন।স্বর্ণা লিখিত বক্তব্যে দাবি করেন, ২০০২ সাল থেকে কুয়াকাটায় ব্যবসায়িক উদ্দেশে জমি কেনেন। প্রায় ৭০ বিঘা জমির মালিক তিনি। এর মধ্যে এসএ ১২০৩ নম্বর খতিয়ানে একটি স্থাপনাসহ ৩৩ শতক জমি কেনেন ২০০৮ সালে, যা থেকে ২০ শতক বিক্রি করেন। বাকি জমিতে তিনি বসবাস করে আসছেন। যার নাম স্বর্ণাঞ্চল। কিন্তু ওই বাড়ির প্রবেশপথটি কমল হাওলাদারসহ তার সহযোগীরা বন্ধ করে দেয়। পরে স্থায়ীভাবে লোহার গেট লাগানোর জন্য রাজমিস্ত্রি নিয়ে কাজ করছিলেন স্বর্ণা।তিনি আরও জানান, ৩ মার্চ কাজ চলাকালে প্রথমে মহীপুর থানার এসআই হাফিজুর রহমান কয়েকজন পুলিশ নিয়ে বাধা দেন। অপমানজনক কথা বলেন। তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। ব্যর্থ হয়ে মহিপুর থানার ওসি সাইদুলকে ফোন করেন। ওসি থানায় চা খাওয়ার দাওয়াতের কথা বলে। যেতে না চাইলে পুলিশ ভ্যানে জোর করে তোলার চেষ্টা করা হয়। বাধ্য হয়ে একটি ভাড়াটে হোন্ডায় স্বর্ণা মহিপুর থানায় যান। সেখানে তাকে আটকে রেখে কেআর ফ্যাশন ইন্টারন্যাশনালের কেয়ারটেকার কমল হাওলাদারকে দিয়ে একটি মামলা করে আদালতে সোপর্দ করা হয়। ১১ দিন হাজতবাসের পর কুয়াকাটায় এসে এখনও তিনি নিরাপত্তাহীন বলেও জানান নারী ভাইস চেয়ারম্যান। অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন জানান, কেআর ফ্যাশনের মধ্যে নাজনীন আক্তার এক শতক জমি পেলেও দেয়া হবে। কেআর ফ্যাশনের জমির দেয়াল ভাঙা হয়েছে বলে কেয়ারটেকার কমল হাওলাদার পাল্টা অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুল ইসলাম জানান, নাজনীন আক্তারের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট মামলা রয়েছে। আর তিনি মহিলা পুলিশকে গালাগালসহ লাঞ্ছিত করে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন।’’

24Shares

Count currently

  • 174679Visitors currently online:

Counter Total

Facebook Pagelike Widget

Desing & Developed BY EngineerBD.Net